Android Phone Battery বা স্মার্টফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার কিছু উপায়

সময়ের পরিবর্তনের ফলে যত দ্রুত গতির প্রসেসর ও হাই রিফ্রেশ রেট ডিসপ্লে আসছে, ততই স্মার্টফোনের ব্যাটারির চাহিদা বাড়ছে। স্মার্টফোনের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি এলেও ব্যাটারি প্রযুক্তিতে তেমন কোনো যুগান্তকারী পরিবর্তন আসেনি। এখনও প্রায় স্মার্টফোনেই থাকে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি। সম্প্রতি Samsung Galaxy M51- এর মতো ফোনে  7,000mAh ব্যাটারি ব্যবহৃত হলেও বেশিরভাগ ফোনেই  2,000mAh-5,000mAh এর মধ্যে ব্যাটারি থাকে। মোবাইল চার্জ দেওয়ার সঠিক নিয়ম না জেনে স্মার্টফোন চার্জ দেওয়ার ফলে হঠাৎ মোবাইলের চার্জের স্থায়িত্ব কমে যাই, ব্যাটারি ফুলে যাওয়া, অটোমেটিক চার্জ শেষ হয়ে যাওয়া এবং কিছু ক্ষেত্রে আরো সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় আমাদের। তাই আপনি যদি নিজের মোবাইলের ব্যাটারির কার্যক্ষমতা চিরকাল ভালো রাখতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই সঠিক ভাবে মোবাইল চার্জ দিতে হবে বা করতে হবে।

এজন্য চলুন জেনে নেই, সঠিক উপায়ে মোবাইল চার্জ করার টিপস ও ট্রিকস গুলো..!…

🔺Smartphone দিনে কতবার চার্জ দেওয়া ভালো :

কিছু প্রশ্ন রয়েছে প্রায় প্রতিটি স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর। যেমন ,

দিনে স্মার্টফোনে চার্জ কতবার দেওয়া ভালো?
কতক্ষণ পর পর চার্জ দেওয়া যাবে?
একবারে কত % চার্জ করা উচিত?
যদিও প্রশ্নগুলোর নতুন নয়। তবে মোটামুটি সে গুলোকে গুছিয়ে একদল প্রযুক্তিপ্রেমী উত্তর সাজিয়েছেন   আর তা জানান দিয়েছে, “দ্য নিউইয়র্ক টাইমস ”  প্রথমেই বলা হয়েছে মুঠোফোনের চার্জ যেভাবে করবেন, সময়ের সাথে সাথে ব্যাটারির Performance কমতে থাকবে, আর তা নির্ভর করবে ব্যাটারি ইলেকট্রোডের চার্জের পরিবহনের ওপর। ব্যাটারির চার্জ (20- 80)% এর ভিতরে রাখলে ইলেকট্রোড ভালো কাজ করে ।অথাৎ চার্জের পরিমাণ 20% থেকে কমতে দেওয়া যাবে না। এতে ব্যাটারির আয়ু তুলনামূলকভাবে ধীরে ধীরে ফুরায়। তাই একটি স্মার্টফোন চার্জে দেওয়ার সঠিক সময় যখন ব্যাটারীতে 50% থেকে কম পরিমাণে চার্জ থাকবে

অনেক ব্যবহারকারী, এমনকি অনেক বিক্রেতা বলে থাকেন স্মার্ট ফোন কিনে প্রথমে বন্ধ করে শতভাগ চার্জ করে নেয়ার কথা। কিন্তু প্রযুক্তিবিদরা বলছেন এটি সঠিক নয় । কারণ উৎপাদনকারীরা ফোনটির জন্য সবচেয়ে ভালো চার্জেই রাখেন। পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, নতুন ফোনটি কেনার পর যদি ফোনটি চার্জ 40% এর নিচে থাকে, তাহলে সেই ডিভাইসটিকে না নেওয়াই ভালো।

🔺 জেনে নিন বার বার চার্জে কি স্মার্টফোনের জন্য লাভ নাকি ক্ষতি :

বারবার 100% চার্জ না করলে এবং ঘন ঘন চার্জ না করলে ব্যাটারির আয়ু কিছুটা বাড়তে পারে এমন কিছু নয় বরং স্মার্টফোনের ব্যাটারিকে এমন ভাবে তৈরি করা হয়েছে যখন প্রয়োজন তখন এই চার্জ দেয়া যাবে। তবে চার্জ দেয়ার উত্তম সময় হল যখন 50% এর কম হবে। ব্যাটারির আয়ুতে সবচেয়ে বেশি নেতিবাচক প্রভাব ফেলে তাপ। এক্ষেত্রে 35 ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা পরিহার করার কথা বলছেন প্রযুক্তিবিদরা।

তবে ফাস্ট চার্জিং বা বেশি ওয়াটের এর চার্জার ব্যবহারের ক্ষেত্রে সতর্কতা হিসেবে বলা হয়েছে, মুঠোফোন 1100W এর বেশি ওয়াট ব্যবহার না করার কথা। এমনকি কম্পিউটার বা ল্যাপটপে USB পোর্ট ব্যবহারে নির্উৎসাহিত করেছেন তারা। কারণ তাতে সুষম বা প্রয়োজনীয় চার্জ হয় না। যার প্রভাব পড়ে ব্যাটারীতে।

তাছাড়া, একটি মোবাইল চার্জিং এর সময় আমরা এসব ভুল কাজ করে ফেলি, এসব ভুল করা বন্ধ করতেই হবে চার্জের স্থায়িত্ব বাড়াতে।

🔺 মোবাইল চার্জে দিয়ে ব্যবহার করবেন না :

কারণ ,মোবাইল চার্জে থাকা অবস্থায় যখন ব্যবহার করা হয়, তখন মোবাইলের ডিসপ্লে ,প্রসেসর এবং অন্যান্য অংশ ব্যাটারি থেকেই Power ব্যবহার করে । এতে ব্যাটারির চার্জের বর্তমান ব্যবহার এবং চার্জারে সরবরাহ (Supply) করা চার্জের পরিমাণের মাঝে প্রতিযোগিতার (Competition) এর সৃষ্টি হয়। ফলে, মোবাইলের ব্যাটারি সাংঘাতিক বেশি পরিমাণে গরম হয়ে যাওয়ার সুযোগ হয়ে ওঠে। আর এই ” Battery Overheating ” এর ফলেই আপনার মোবাইলের ব্যাটারি চার্জ না হওয়া, ব্যাটারি খারাপ হয়ে যাওয়া, ব্যাটারি অনেক ধীরে ধীরে চার্জ হওয়া, এই সব সমস্যা দেখা দিতে পারে।

🔺 Battery Optimization apps ব্যবহার করুন:

আমাদের এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনে প্রতিনিয়ত কিছু কিছু apps কাজ করতেই থাকে এবং এমন অনেক Background Functions আছে যেগুলোর কোনো প্রয়োজন নেই। এসব মোবাইলের চার্জ কমাতে থাকে।তাই নিচে দেওয়া Battery Optimization Apps ব্যবহার করতে পারেন:—

  • Battery Doctor
  • Kaspersky Battery Life
  • Battery PI & Optimization

এই apps গুলো ব্যবহার করে আপনি background এ ব্যবহার হওয়া চার্জের পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারবেন এবং ব্যাটারি গরম হয়ে গেলে ঠাণ্ডা করতেও সাহায্য করবে। ফলে ব্যাটারির স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। এই ধরনের apps মোবাইল ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার সহায়ক বলে প্রমাণিত হয়েছে।

🔺 Low Quality Mobile Charger বা  Low Quality Power Bank ব্যবহার করবেন না:

আপনার মোবাইল ফোনের ব্যাটারির কার্যক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে হলে, অবশ্যই আপনাকে নিজের মোবাইলের সাথে দেওয়া অরজিনাল চার্জার ব্যবহার করতে হবে। কিন্তু হঠাৎ কোনো Emergency থাকলে বা চার্জার খুঁজে না পাওয়া গেলে, তখন অন্য একটি ভালো চার্জার ব্যবহার করতে পারেন। তবে অনেক বেশি সময়ের জন্য কোনো Low Quality Mobile Charger-এর ব্যবহার আপনার মোবাইলের ব্যাটারিকে সাংঘাতিক ক্ষতি প্রদান করতে পারে। আর, যদি চার্জার নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে মোবাইল কোম্পানির সার্ভিস সেন্টার থেকে একটি অরজিনাল চার্জার কিনে নিতে পারেন।

অবশেষে এটাই বলার যে :
মোবাইল চার্জে দেওয়ার উপরোক্ত নিয়মগুলো প্রয়োগ করুন, আপনার স্মার্টফোনের ব্যাটারির কার্যক্ষমতা ভালো রাখুন।

1 thought on “Android Phone Battery বা স্মার্টফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার কিছু উপায়”

  1. Amazing blog! Do you have any recommendations for aspiring writers? I’m planning to start my own site soon but I’m a little lost on everything. Would you suggest starting with a free platform like WordPress or go for a paid option? There are so many choices out there that I’m totally confused .. Any ideas? Bless you!

Leave a Comment

Your email address will not be published.